শনিবার, ০৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ০৫:০৪ পূর্বাহ্ন

গরীবের দোকানদার কুদ্দুস

তোফায়েল হোসেন জাকির, জাগো২৪.নেট
  • প্রকাশের সময় : সোমবার, ৯ জানুয়ারী, ২০২৩

বৃদ্ধ কুদ্দুস আকন্দ। বয়স ৯০ বছর ছুঁইছুঁই। গ্রামীন ঐতিহ্যকে আকড়ে ধরে রাখায় তার প্রতিজ্ঞা। সেই লক্ষে বিক্রি করে চলেছেন মাটির হাড়ি-পাতিলসহ বাঁশের পণ্যসামগ্রী। এসব পণ্য উচ্চ-মধ্যবিত্ত¡রা না কিনলেও গরীবের চাহিদা প্রচুর। প্রায় ২৫ বছর ধরে এই ব্যবসা করে সংসার চলছে ওই বৃদ্ধের।

সম্প্রতি গাইবান্ধার সাদুল্লাপুর উপজেলা শহরস্থ ডিসি রাস্তা ঘেঁষে উত্তর পাশের দোকানে বসে থাকতে দেখা যায় কুদ্দুস আকন্দকে। এখানে ছিন্নমূল পরিবারের বেশ কিছু মানুষ কিনছিলেন মাটির হাড়ি-পাতিল ও অন্যান্য সামগ্রী। আবার কেউ কেউ বাঁশের তৈরী ঝাড়–-ডালা ও খোঁচা ক্রয়ও করছিলেন।

জানা যায়, ওই উপজেলার জামালপুর ইউনিয়নের তরফ বাজিত গ্রামের মৃত তমিজ উদ্দিনের ছেলে আব্দুল কুদ্দুস আকন্দ। তৃতীয় শ্রেণি পর্যন্ত লেখাপড়ার সুযোগ হয়েছে তার। এরপর যুবক বয়সে হাল ধরেছিলেন পিতার সংসারে। জীবিকার তাগিদে শুরু করে প্যাডেল চালিত রিকশা ও বাইসাইকেল মেরামতের কাজ। এ কাজটি করা অবস্থায় শুরু হয় নতুন দাম্পত্য জীবন। এ জীবনে ৪ ছেলে ও ৫ মেয়ের জনক। প্রায় ৪০ বছর ওইসব ওই কাজটি করেন। সেটি আধুনিকতার ছোঁয়ায় কাজের গতি কমে যায়। ফলে এখান থেকে সংসার চালানো দায় হয়ে পড়ে তার। বাধ্য হয়ে নতুন কর্মজীবনের পরিকল্পনা নেন কুদ্দুস আকন্দ। গ্রামীন ঐতিহ্য যেন বিলুপ্তি না হয়, সেই চিন্তা থেকে শুরু করে মাটি ও বাঁশের তৈরী পণ্যসামগ্রী বিক্রির দোকান। তার দোকানে রয়েছে মাটির হাড়ি, পাতিল, বাটা, কাসা প্রভুতি। এছাড়া বাঁশের তৈরী, ডালা, ডালি, কোলো, চালোন, খোঁচা, ঝাড়–সহ আরও অনেক জিনিসপত্র। একমাত্র গ্রামীন ঐতিহ্যকে আঁকড়ে ধরে এবং গরীব মানুষের চাহিদা পূরণে এই ব্যবসাটি প্রায় ২৫ বছর ধরে অব্যাহত রেখেছেন। ক্ষুদ্র এই ব্যবসার লাভের টাকায় চলছে তার পরিবারের জীবিকা। এরই মধ্যে বার্ধ্যক্য বয়স আর ওইসব পণ্য ক্রেতার চাহিদা কমে যাওয়ায় কোনমতে ধরে রেখেছেন ব্যবসাটি।

ওই দোকানে আসা রিকশা চালক নজরুল ইসলাম জাগো২৪.নেট-কে বলেন, আয়-রোজগার কম থাকা বেশী দামে অত্যধুনিক পণ্য কেনা সম্ভব নয়। তাই কুদ্দুস চাচার দোকানে দুটি পাতিল ও একটি কাসা কিনলাম। প্রায়ই এখান থেকে কিছু মাটি ও বাঁশের জিনিসিপত্র কেনাকাটা করি। আরেক ক্রেতা জানান, বাড়িতে হাস-মুরগী পালন করেন তিনি। এগুলোর জন্য একটি বাঁশের খোঁচা ও আরেকটি ডালি কিনেছেন।

এ বিষয়ে বৃদ্ধ আব্দুল কুদ্দুস আকন্দ জাগো২৪.নেট-কে   বলেন, আমার ৪ ছেলে বিয়ে করে আলাদা খায়। অতিকষ্টে ৫ মেয়েকে বিয়ে দিয়েছি। বয়স বেশী হওয়ায় আগের মতো ঠিকাঠাকভাবে ব্যবসা করতে পারছি না। তবু জীবন বাঁচার তাগিদে ব্যবসাটি ধরে রেখেছি। এখান থেকে যেটুকু আয় হয় তা দিয়ে কোনমতে চলছে সংসার।

তিনি আরও বলেন, গ্রামীন ঐতিহ্যবাহী ধরে রেখে বাঁশ ও মাটির পণ্যগুলো বিক্রি করে শেষ বয়স পর্যন্ত এই ব্যবসা করতে চাই। কিন্ত ইতোমধ্যে পূঁজি সংকটে ক্রেতা চাহিদা মোতাবেক দোকানে পণ্যসামগ্রী তুলতে পারছিনা। ফলে ব্যবসাটি স্থবির হয়ে পড়ছে। যদি সরকারি-বেসরকারিভাবে কেউ সহযোগিতা করতো তাহলে এই ব্যবসা দিয়ে বাকী জীবনটি পার করতে পারতাম।

এ ব্যাপারে সাদুল্লাপুর বাজার বনিক সমিতির সভাপতি শফিউল ইসলাম স্বপন জাগো২৪.নেট-কে জানান, কুদ্দুস আকন্দ অনেকদিন যাবৎ ব্যবসাটি ধরে রাখছেন। কিন্তু ধীরে ধীরে তিনি বার্ধক্য হয়ে পড়ছেন। একারণে সঠিকভাবে ব্যবসা পরিচালনা করতে পারছেন না। তাকে সহযোগিতা করা দরকার।

শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরও খবর

© ২০২০ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | জাগো২৪.নেট

কারিগরি সহায়তায় : শাহরিয়ার হোসাইন