বৃহস্পতিবার, ১৮ এপ্রিল ২০২৪, ০১:৪২ পূর্বাহ্ন

পেট চলে না ভাইরাল সিদ্দিকের

তোফায়েল হোসেন জাকির, জাগো২৪.নেট
  • প্রকাশের সময় : শুক্রবার, ৭ জুলাই, ২০২৩

তোফায়েল হোসেন জাকির: আবু বক্কর সিদ্দিক। বয়স প্রায় ৩৫ বছর। দরিদ্রতার সঙ্গে সংগ্রাম। রয়েছে মানসিক সমস্যাও। জীবিকার তাগিদে করছিলেন ভিক্ষাবৃত্তি। এরই মধ্যে প্রায় বছর খানেক আগে মানসিক ভারসাম্য হারিয়ে এক নারীর হাত থেকে ৫০০ টাকা নিয়ে দৌড় দেয়। এরপর চোর ভেবে তাকে আটকের পর পুলিশে সোপর্দ করে স্থানীয়রা। সেই দৃশ্য ছড়িয়ে পড়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে। আর এই সুযোগ কাজে লাগায় কিছু সংখ্যক ফেসবুক পেজ ও ইউটিউবাররা। তাকে ‘‘সিদ্দিক চোর‘‘ অখ্যা দিয়ে নানা ধরণের সর্ট নাটক তৈরী করেন তারা।

এরই ধারাবাহিকতায় নেটদুনিয়ায় ভাইরাল হয় এই সিদ্দিক। দ্রুত হয়ে ওঠেন সেলিব্রেটি। তাকে দিয়ে দর্শকপ্রিয় ভিডিও কনন্টেন পোষ্ট করে লাখ লাখ টাকা আয় করেন পেজ ও ইউটিউবারের দল। এখন সেই সিদ্দিকের সংসার চলে না। মা-স্ত্রীকে নিয়ে খেয়ে না খেয়ে জীবনযাপন একটি ভাঙা ঘরে। বাধ্য হয়ে আবারও ভিক্ষাবৃত্তি পেশায় নেমেছে সেলিব্রেটি সিদ্দিক।

সম্প্রতি ওই সিদ্দিকের সঙ্গে দেখা হয়- গাইবান্ধার সাদুল্লাপুর উপজেলা শহরে। এ শহরে ভিক্ষা করছিলেন তিনি। এসময় ভিডিওতে সিদ্দিক চোর হিসেবে চেনে ফেলেন অনেকে। এরই মধ্যে কথা হয় তার সঙ্গে। জানালেন নানা দুঃখের কথা।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, রংপুরের মিঠাপকুর উপজেলার ইমাদপুর ইউনিয়নের গইলবাড়ী গ্রামের মৃত খতিব উদ্দিন ও মোছা. ভানু বেগম দম্পতির একমাত্র ছেলে আবু বক্কর সিদ্দিক। তার আরও চার বোন রয়েছে। জীবদ্দশায় পিতা খতিব উদ্দিন ভিক্ষাবৃত্তি করে সংসার চালাতেন। তার সন্তানদের মধ্যে আবু বক্কর সিদ্দিক একজন মানসিক প্রতিবন্ধী। বাবার সংসারে হাল ধরতে সিদ্দিকও ভিক্ষাবৃত্তি পেশায় নেমে পড়েন। এরই মধ্যে বিয়ে করলে সেই স্ত্রীটি মারা যায়। পরবর্তী আশমনি আক্তার নামের একজনকে দ্বিতীয় বিয়ে করে সিদ্দিক। এই সংসারটিও টেকেনি তার। মানসিক সমস্যা আর চরম দরিদ্রতার কারণে সিদ্দিককে ছেড়ে অন্যত্র বিয়ে করে আশামনি। এরপর বগুড়া রেল স্টেশনের একটি চা দোকানে কাজ নেয় সিদ্দিক। পাশের একটি ফুটপাতে ভাতের দোকানে কাজ করছিলেন নছিমন খাতুন নামের কর্মচারি। একপর্যায়ে একে-অপরের প্রেমে সিদ্দিক তৃতীয় বিয়ে করে নছিমনকে। এই নছিমনও মানসিক প্রতিবন্ধী। তবুও চলছে দাম্পত্য জীবন। জীবিকার তাগিদে ভিক্ষাবৃত্তি করে সংসার চলে সিদ্দিকের। বসবাসের জন্য রয়েছে জরাজীর্ণ ছাপড়া ঘর। আর এ ঘরের বেড়ার শতছিদ্র দিয়ে দেখা যায় পুরো এলাকা। বাড়িতে নেই বিদ্যুতের ব্যবস্থা। যেন অন্ধকার ভুতরে বসবাস। এভাবে দরিদ্রতার সঙ্গে সংগ্রাম করে বেঁচে থাকা সিদ্দিকের।

একপর্যায়ে প্রায় এক বছর আগে গাইবান্ধার ফুলছড়ি ঘাটে ভিক্ষা করতে গিয়ে মানসিক ভারসাম্য হারিয়ে ফেলে সিদ্দিক। এসময় এক নারীর হাত থেকে ৫০০ টাকা নিয়ে দৌড় দেয়। এ ঘটনায় স্থানীয়রা তাকে আটকের পর সোপর্দ করে পুলিশে। এই দৃশ্য ভিডিও ধারণের পর ধীরে ধীরে নেটদুনিয়ায় ভাইরাল হয় সিদ্দিক।

এরপর ফারুক, আলম, বাবুসহ আরও অনেকে সিদ্দিককে দিয়ে ফেসবুক পেজ ও ইউটিউব চ্যানেলে সর্ট নাটক তৈরীতে আয় করে লাখ লাখ টাকা। এভাবে সিদ্দিক দিনদিনে হয়ে ওঠেন সেলিব্রেটি। তবে তাকে দিয়ে অন্যরা মোটা অংকের টাকা আয় করলেও সিদ্দিকের পটেক থাকে ফাঁকা। ওই পেজ ও ইউটিউবাররা ঢাকা, গাজীপুরসহ বিভিন্ন লোকেশনে সিদ্দিককে নিয়ে মাসের পর মাস কাজ করে নিলেও দেওয়া হয়নি পারিশ্রমিক। শুধুমাত্র আসার সময় তার হাতে দেওয়া হত গাড়ী ভাড়া। এখন এই ভাইরাল সিদ্দিকের কদর নেই বললেই চলে। কেউ খোঁজ নেয় না তার। ভিডিও কন্টেন করতেও আর ডাকে না কেউ। সিদ্দিককে চোর উপাধি দিয়ে আর লাখ লাখ টাকা রোজগার করে সটকে পড়েছে সবাই। বাধ্য হয়ে ফের ভিক্ষাবৃত্তি পেশায় নেমেছে সেলিব্রেটি সিদ্দিক।

লিটন মিয়া নামের এক দর্শক জানান, বিভিন্ন ফেসবুক পেজ ও ইউটিউব চ্যানেলে সিদ্দিকের নানা ধরণের সর্ট নাটক দেখে মুগ্ধ হয়েছেন। এমনকি সিরাজগঞ্জে ব্যারিষ্টার সুমন ফুটবল টুর্নামেন্ট অনুষ্ঠানে সিদ্দিককে বিশেষ অতিথি হিসেবে রাখা হয়েছিল। সেই সিদ্দিক এখন ভিক্ষা করে জীবিকা নির্বাহ করছে এটি খুবই দুঃখজন বলে মনে করেন তিনি।

ভাইরাল আবু বক্কর সিদ্দিক বলেন, হামাক দিয়্যা ইউতিউব তিবিতে (টিভি) মেলাগুলা নাতক (নাটক) বানাছে। তামরা (তারা) নাখ নাখ (লাখ) ট্যাকা কামাই করচে। হামাক ট্যাকা দেয়নি কেউ। এক-দুই মাস থাকার পর হামি বাড়িত আসার সোমে হামার হাতত এক-দেড় হাজার ট্যাকা দিছে। একন এ্যালা কেউ ডাকে না। মুই একন বিক্ষা (ভিক্ষা) করি খাতিছোম।

সিদ্দিকের প্রতিবেশী ও ইউপি সদস্য ইব্রাহীম মিয়া বলেন, আবু বক্কর সিদ্দিকের পরিবারটি অত্যান্ত দুস্থ-অসহায়। সহায় সম্বল বলতে কিছুই নেই তাদের। আছে একটি ভাঙা ছাপড়া ঘর। এরই মধ্যে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়। এতে আমার ভাতা টাকা দিয়ে সিদ্দিককে সহযোগিতা করেছি। এছাড়া পরিষদের পক্ষ থেকেও  সহযোগিতা করা হচ্ছে।

মিঠাপকুর উপজেলার ইমাদপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান শফিকুল ইসলাম বলেন, আবু বক্কর সিদ্দিক সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হওয়ার বিষয়টি জানা রয়েছে। এখন আবার ভিক্ষা করছে সেটি আমার জানা নেই। সিদ্দিকের পরিবারকে সহায়তা দেওয়ার চেষ্টা করা হবে।

 

শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরও খবর

© ২০২০ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | জাগো২৪.নেট

কারিগরি সহায়তায় : শাহরিয়ার হোসাইন