শনিবার, ০৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ০৫:০৩ পূর্বাহ্ন

ঐতিহাসিক কুঠিবাড়ী “ডিসপেনসারি” ধ্বংসের দ্বারপ্রান্তে

তোফায়েল হোসেন জাকির
  • প্রকাশের সময় : বৃহস্পতিবার, ১২ জানুয়ারী, ২০২৩

 ঐতিহাসিক নিদর্শন কুঠিবাড়ীর “ডিসপেনসারি” নামের ঘরটি আজও কালের সাক্ষী হয়ে দাঁড়িয়ে রয়েছে। ইতোমধ্যে ডিসপেনসারির কিছু মালামাল লুটপাট কাণ্ডে সেটি এখন ধ্বংসের দ্বারপ্রান্তে বলে স্থানীয়দের অভিযোগ।

সম্প্রতি গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জ উপজেলা ভূমি অফিস ও অফিসার্স কোয়ার্টারের পেছনে জরাজীর্ণ অবস্থায় দাঁড়িয়ে থাকার দৃশ্য দেখা যায় এই ডিসপেনসারি ।

জানা যায়, নীলকরদের রাজত্ব শেষে গোবিন্দগঞ্জের এই ‘কুঠিবাড়ী’ মহারাজা স্যার প্রদোৎ কুমার ঠাকুরের অধীনস্থ হয় এবং মহারাজা প্রদোৎ কুমার ঠাকুর বাহাদুর এই কুঠিবাড়ীতেই তার জমিদারী প্রশাসনের কেন্দ্রস্থল হিসেবে পরিনত করেন। এই কুঠিবাড়ীতে মহারাজা তার রাজস্ব আদায়ের পাশাপাশি বেশকিছু উন্নয়ন মুলক ও সেবামুলক কর্মকাণ্ড শুরু করেন। অনেকের ধারনা এসময়ই মহারাজা তার কর্মচারী ও প্রজাদের চিকিৎসা সেবার জন্যই লোহার শিকলে বাঁধা এই ডিসপেনচারীটি প্রতিষ্ঠা করেন। জনশ্রুতি আছে, একসময় জনসাধারণের বিনামূল্যে চিকিৎসা সেবা প্রদানের অন্যান্য স্থাপনা লোহার শিকলে বাঁধা “ডিসপেনসারি”। ছোট-খাট অসুখে বিনা মূল্যে ওষুধ পাওয়া যায় এ কারণে ব্যাপক পরিচিতি ছিল এই ‘ডিসপেনসারি’র। ইট সিমেন্টের ঢালাই করা মেঝে, চারিদিকে অর্ধেক ইট ও আরেক অর্ধেক টিনের দেয়াল আর উপরে বাংলা টিনসেড এ ঘরটিতে ৩টি কক্ষ ছিল। উত্তর-দক্ষিণে লম্বা এ ঘরটি উত্তর দক্ষিণে ২টি ও পূর্ব পশ্চিমে ২টি মোট ৪টি বড় বড় মোটা শিকল দিয়ে মাটির সাথে বাঁধা ছিল। ঝড়ে যাতে ক্ষতিগ্রস্থ না হয় এজন্যই সম্ভবত ৪টি লোহার শিকল দিয়ে মাটির সাথে বাঁধা হয় এ ডিসপেনচারী’র ঘরটি। এরপর সরকারিভাবে গোবিন্দগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স প্রতিষ্ঠা হলে এই ডিসপেনসারির কদর কমে যায় এবং কার্যক্রম বন্ধ করে তালা বদ্ধ করা হয়। দীর্ঘদিন তালাবদ্ধ থাকা অবস্থায় এক সময় গঙ্গাজলি নামের এক সুইপার তার স্বামী সন্তানদের নিয়ে এই ডিসপেনসারির বারান্দায় বসবাস শুরু করে এবং এখনও তার পরবর্তী পরিবার এই ডিসপেনসারির সামনে আরেকটি টিনের ঘর তুলে বসবাস করে চলেছে। কিন্তু ধারনা করা হচ্ছে কিছু নেশাখোর ডিসপেনসারির দরজা, জানালা, টিনসহ বিভিন্ন আসবাবপত্র চুরি করে নিয়ে গিয়ে বিক্রি করে তাদের নেশার অর্থ জুগিয়েছে। এরই মধ্যে লক্ষাধিক টাকা মূল্যের ৪টি লোহার শিকলও কে বা কারা চুরি করে নিয়ে গেছে। স্থানীয়দের অভিযোগ, শুধুমাত্র প্রশাসনের কর্মকর্তাদের তাদের সুদৃষ্টির অভাবে তাদের চোখের সামনেই দিন দিন কে বা কারা এই ডিসপেনসারির আসবাবপত্রসহ দরজা-জানালা, টিন খুলে নিয়ে গেছে। বর্তমানে ঐতিহাসিক নিদর্শন এই ডিসপেনচারীটি এখন ধ্বংস হতে চললেও দেখার কেউ নেই। স্থানীয় খয়বর রহমান নামের এক ব্যক্তি জানান, কিছুদিন আগেও এ ঐতিহাসিক ডিসপেনসারির দরজা, জানালা, টিনের চালা, লোহার শিকল সবই ছিল। কিন্তু এখন দেখছি অনেক কিছুই নেই।

উপজেলার প্রশাসনিক চত্বরে অবস্থিত প্রশাসনের কর্মকর্তা- কর্মচারীদের সামনে থেকেই জমিদারী আমলের ঐতিহাসিক নিদর্শনটি দিন দিন হরিলুট হয়ে যাওয়া দুঃখজনক।

ডিসপেনচাসারির পাশে বসবাসরত সুইপার গণেশ বাসফোর ও জনি বাসফোর জানান, কে বা কারা দরজা জানালা, টিন, লোহার শিকল খুলে নিয়ে গেছে আমরা জানিনা।

এ বিষয়ে গোবিন্দগঞ্জ উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) এস.এম আব্দুল্লা-বিন শফিক বলেন, ওই ডিসপেনসারির মালামাল হরিলুটের ব্যাপারে আমার কিছু জানা নেই। খতিয়ে দেখে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরও খবর

© ২০২০ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | জাগো২৪.নেট

কারিগরি সহায়তায় : শাহরিয়ার হোসাইন