শুক্রবার, ১৪ জুন ২০২৪, ১০:৪৪ পূর্বাহ্ন

কুড়িগ্রামে বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চল পরিদর্শন করলেন ভূটানের রাজা

স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট, জাগো২৪.নেট. কুড়িগ্রাম
  • প্রকাশের সময় : বৃহস্পতিবার, ২৮ মার্চ, ২০২৪

কুড়িগ্রামে বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চলের জন্য নির্ধারিত স্থান ও সোনাহাট স্থলবন্দর এলাকা পরিদর্শন করলেন ভূটানের রাজা জিগমে খেসার ওয়াংচুক।

বৃহস্পতিবার দুপুরে তিনি সৈয়দপুর বিমানবন্দর থেকে দুপুর সাড়ে ১২টায় কুড়িগ্রাম সার্কিট হাউজে এসে পৌছান। সেখানে বিশ্রাম ও দুপুরের খাবারের পর জেলা শহরের কাছে ধরলাব্রীজ পূর্ব প্রান্তে অবস্থিত প্রস্তাবিত ভূটান বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চল পরিদর্শন করেন। দুপুর ১টা ২০ মিনিটে  পৌঁছান তিনি। সেখানে তিনি প্রায় ২০মিনিট অবস্থান করে সবকিছু দেখেন এবং তথ্য উপাত্ত সংগ্রহ করেন। পরে রাজা স্থান নিয়ে সন্তোষ প্রকাশ করেন।

তিনি এলাকাটি একটু ঘুরে দেখেন এবং সবার সাথে ছবি তোলেন। জোন এলাকাটি তার পছন্দ হয়েছে বলে উল্লেখও করেন। এছাড়াও তিনি ইকোনোমিক জোন এলাকায় এগ্রোবেজড ও মেনুফ্যাকচারিং ইন্ডাস্ট্রিজ হওয়ার সম্ভাবনার রয়েছে বলে আভাস দিয়েছেন। তিনি আরও জানান ভুটানের বিনিয়োগকারী এবং বাংলাদেশের স্থানীয়দের চাহিদার উপর নির্ভর করবে কি ধরনের শিল্প কারখানা স্থাপন করা হবে। পরে তিনি জোন এলাকায় তিনি ১টা ৪০মিনিটে সোনাহাট স্থলবন্দরের উদ্দেশ্যে সফরকারী দলসহ সড়ক পথে যাত্রা শুরু করেন।

এ সময় তথ্যমন্ত্রী এম,এ আরাফাত, নৌ পরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী, সংসদ সদস্য ডাঃ হামিদুল হক খন্দকার, সংসদ সদস্য বিপ্লব হাসান পলাশ, বেজার নির্বাহী  চেয়ারম্যান শেখ ইউসুফ হারুন, জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ  সাইদুল আরীফ ও পুলিশ সুপার আল আসাদ  মোঃ মাহফুজুল ইসলাম উপস্থিত ছিলেন।

রাজা জিগমে খেসার ওয়াংচুক জানান, জায়গাটি আমার ভীষণ পছন্দ হয়েছে। আমি কাজ শুরুর সময় আবার কুড়িগ্রামে আসবো। এরপর পৌনে ৩টার দিকে তিনি সোনাহাট স্থলবন্দর এলাকায় যান। সেখানে ২০মিনিট অবস্থানের পর তিনি স্থলবন্দর দিয়ে ভারতের আসাম রাজ্যের গোলকগঞ্জ দিয়ে ভূটানের উদ্দেশ্যে ভারতে প্রবেশ করেন। সোনাহাট থেকে সড়ক পথে ভুটানের দূরত্ব প্রায় ১৬০ কিলোমিটার।

রাজার সফর শেষে বাংলাদেশ অর্থনৈতিক অঞ্চল কর্তপক্ষ (বেজা) চেয়ারম্যান শেখ ইউসুফ হারুন পরে সাংবাদিকদের জানান, উনি শতভাগ সন্তষ্ট। জায়গা দেখেছেন, যোগাযোগ ব্যবস্থা দেখেছেন। সবকিছু মিলে উনি সন্তষ্টি প্রকাশ করেছেন। আরেক প্রশ্নের জবাবে তিনি জানান, এখানে কি ধরণের কার্যক্রম হতে পারে সে বিষয়ে রাজা জানিয়েছেন এখানকার স্থানীয় লোকজনের কি ধরণের চাহিদা রয়েছে এবং ভুটানের বিনিয়োগকারী লোকজনের কি চাহিদা রয়েছে সবকিছু মিলিয়ে ভিজিবিলিটি স্টাডি চেক করা হচ্ছে তার উপর ভিত্তি করে এখানে ইন্ডাস্ট্রিজ হবে তা নির্ধারণ করা হবে। তবে এগ্রোবেজড ও মেনুফ্যাকচারিং ইন্ডাস্ট্রিজ হওয়ার সম্ভাবনা বেশি। এছাড়াও তিনি আরও বলেন, এই অর্থনৈতিক অঞ্চলে প্রায় ১০/২০হাজার লোকের কর্মসংস্থান হবে।

কুড়িগ্রাম-২ আসনের সংসদ সদস্য ডা: হামিদুল ইসলাম জানান, এই সফরের মধ্যদিয়ে অনুন্নত কুড়িগ্রাম উন্নয়নের দিকে ধাবিত হবে। ২০১৬ সাল থেকে প্রধানমন্ত্রী অর্থনৈতিক জোনের জন্য জায়গা খুঁজতে বলেছিলেন। তারই পরিপ্রেক্ষিতে আজ আমরা সফলতার মুখ দেখছি। এটি বাস্তবায়ন হলে এলাকার বেকার মানুষ কাজ পাবে। সমৃদ্ধির পথে এগিয়ে যাবে পিছিয়ে পরা এই জেলা।

শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরও খবর

© ২০২০ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | জাগো২৪.নেট

কারিগরি সহায়তায় : শাহরিয়ার হোসাইন