শুক্রবার, ১৪ জুন ২০২৪, ০১:০২ অপরাহ্ন

সাদুল্লাপুরের ধাপেরহাটে জনতা ব্যাংক শাখার দাবি  

স্টাফ করেসপন্ডেন্টে, জাগো২৪.নেট
  • প্রকাশের সময় : সোমবার, ৫ ফেব্রুয়ারী, ২০২৪

গাইবান্ধার সাদুল্লাপুর উপজেলার অত্যান্ত গুরুত্বপূর্ণ ও বাণিজ্যিক এলাকা হিসেবে পরিচিত ‘ধাপেরহাট। এলাকার বুকচিরে বয়ে গেছে জাতীয় মহাসড়ক। কৃষিভান্ডার হিসেবেও খ্যাতি রয়েছে। এই ধাপেরহাট এলাকার আশপাশে অনেক সুপরিকল্পিত আবাসিক এলাকা, শিল্পকারখানা, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, এনজিও সংস্থাসহ বিভিন্ন ব্যবসা-বাণিজ্য দিনে দিনে বাড়ছে। কিন্তু আর্থিক নিরাপত্তার জন্য নেই জনতা ব্যাংকের শাখা। তাই অর্থনৈতিক উন্নয়নের জন্য ধাপেরহাট বন্দরস্থ একটি জনতা ব্যাংকের শাখা স্থাপনের দাবি এলাকাবাসীর।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, রংপুর-ঢাকা ফোরলেন মহাসড়কের উপর অবস্থিত ধাপেরহাট ইউনিয়নটি পাশ্ববর্তী পীরগঞ্জ, পলাশবাড়ী ত্রি থানা সীমান্ত ঘেষা এলাকা হওয়ায় সময়ের সাথে তাল মিলিয়ে এখানে গড়ে উঠেছে শতাধিক বড় বড় ব্যাবসা প্রতিষ্ঠান। এ ছাড়াও এ এলাকার মাটি উচু, লাল, কৃষিউপযুক্ত হওয়ায় এখানে ব্যাপক কাচামাল,শাক সবজী উৎপন্ন হয়ে থাকে। যা স্থানীয় চাহিদা মিটিয়ে প্রতিদিন রাজধানী ঢাকাসহ বিভিন্ন জেলায় ট্রাকযোগে রপ্তানী হয়ে থাকে। যে কারনে সরকারের প্রতিবছর মোটা অংকের রাজস্ব আয় আসে এই ধাপেরহাট থেকে। এ উপজেলার একমাত্র আলুর হিমাগার আর ভরসা কোল্ড ষ্টোর ধাপেরহাটে অবস্থিত। এ এলাকার শতাধিক মানুষ ইউরোপসহ বিভিন্ন দেশে দির্ঘদিন থেকে প্রবাস জীবন অতিবাহিত করছেন। কিন্তু দুঃখের বিষয় এই জনগুরুত্বপূর্ণ স্থানটিতে একটি মাত্র বানিজ্যিক রুপালী ব্যাংকের শাখা রয়েছে। যা গ্রাহকের সেবা দিতে হিমশিম খাচ্ছেন। ব্যাংকে লেনদেন করতে গিয়ে দির্ঘ লাইনে অপেক্ষা করতে হয় গ্রাহকদের।  বিদ্যমান পরিস্থিতিতে স্থানীয় ব্যাবসায়ী, প্রবাসী এবং কৃষক সমাজ একটি জনতা ব্যাংকের পুনাঙ্গ শাখার জোর দাবি তুলেছেন। সাদুল্লাপুর উপজেলায় এমনকি ধাপেরহাট এলাকার আশেপাশে জনতা ব্যাংকের শাখা নেই।

স্থানীয় ব্যবসায়ী কফিল উদ্দিন সরকার বলেন, ব্যবসায়ীক টাকা-পয়সা নিরাপ্তার স্বার্থে ধাপেরহাট বন্দরে জনতা ব্যাংকের একটি শাখা খোলা হোক, এটাই আমার দীর্ঘ দাবি।

ধাপেরহাট বনিক সমিতির সভাপতি নুর মোহাম্মদ মিলন জাগো২৪.নেট-কে বলেন, ধাপেরহাট এলাকাটি এলাকাটি বিশেষ করে কৃষি এলাকা হিসেবে স্বনামধন্য। ধান চাষের পাশাপাশি ব্যাপক শাকসবজি, ফলমূল, মাছ চাষের প্রবণতা দিনে দিনে বাড়ছে। সেই সাথে গড়ে উঠেছে বিভিন্ন ধরণের ব্যবসা প্রতিষ্ঠান। কিন্তু দুঃখের বিষয়, ধাপেরহাট বন্দরে জনতা ব্যাংকের কোনো শাখা নেই। যদি শাখা থাকত, তবে এলাকার লোকজন ব্যবসা-বাণিজ্যের লেনদেনের পাশাপাশি কৃষকেরা কৃষিঋণের সুবিধা নিয়ে অর্থনৈতিক উন্নয়নে বিশেষ ভূমিকা রাখতে পারতেন। জনতা ব্যাংকের

রংপুরের জেনারেল ম্যানেজার আনিছুর রহমান জাগো২৪.নেট-কে বলেন, ধাপেরহাট বন্দরস্থ ব্যাংক শাখা স্থাপনের উপযোগি কিনা, ইতোমধ্যে সেটি পরিদর্শন করা হয়েছে। এ ব্যাপারে উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানানো হবে।

 

শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরও খবর

© ২০২০ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | জাগো২৪.নেট

কারিগরি সহায়তায় : শাহরিয়ার হোসাইন